বগুড়া সংবাদ ডট কম : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বহুল আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম দিনের শুরুতে ভোট ‘উপভোগ’ করছিলেন। এরপর কয়েক জায়গায় ঘুরে তার মনে হয় ‘অনিয়ম’ হচ্ছে। বিকেল ৩টা নাগাদ ঘোষণা দেন ভোট বর্জনের। তারপর সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বগুড়া-৪ আসনের এই প্রার্থী বলেছেন আরও নানা কথা।

‘আজকে জানেন আমরা নির্বাচন খুবই উপভোগ করতিছিলাম। বাংলাদেশে সব প্রার্থীরা এক সাথে এরকম করতিছে তা খুবই আনন্দের বিষয়,’ মন্তব্য করে হিরো আলম বলেন, ‘কিন্তু ভোটের মাঠে যায়া দেখি অন্যরকম। ভোটের মদ্দে (মধ্যে) কাহালু-নন্দীগ্রাম আসনোত (আসনে) গেলাম। যায়া দেখতিছি ওখানে ভোট দিতে দিচ্ছে না। ক্যা? কচ্চে সব ভোট হয়া গ্যাচে।’

হিরো আলমের দাবি, তাকে বলা হয়েছে সব ভোট হয়ে গেছে, ‘কচ্চে ব্যালট ফুরে গ্যাচে (শেষ হয়ে গেছে)। এতো সকালেই কীভাবে ব্যালট ফুরে গ্যালো?’

‘তারপরে আসলাম ভাদুড়া গ্রামে। এখানে অ্যাসে কলাম কী ব্যাপার এখানে কী হলো? ঢুকতেই দেখি একজন দৌড় মারিচ্চে। কী ব্যাপার দৌড় মারলো ক্যা? হামার যাই এজেন ছিলো (আমার যে এজেন্ট ছিল) তাক কনো (বললাম) কি ব্যাপার তুই দৌড় মারলু ক্যা? কচ্চে ওরা তো মারধর করে বার করে দিছে।’

হিরো আলম জানান তার কাছে ভিডিও আছে- ‘ওরা যে মারচে হামাক তার ভিডিও কিলিপ আচে, আপনারা চাইলে দেখাইতেছি। দুডে সাংবাদিক আচলো, সাংবাদিকোক সুদ্দ মারচে (সাংবাদিকসহ মারছে)।’

হিরো আলম বলেন এই ভোট তিনি মানেন না, ‘এই ভোট হামি মানি নে। ভোট বর্জন করতে চাই। নির্বাচন বর্জন চাই। আমার আজকে যে পজিশন আমি বিপুল ভোটে জয়ী হইতাম।’

 

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন