বগুড়া সংবাদ ডটকম (শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ) : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনের বিএনপির নেতৃত্বাধীন বিশদলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী আলহাজ গোলাম মোহাম্ম সিরাজের মালিকাধীন অভিজাত রেস্তোরা ফুট ভিলেজে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। এসময় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যসহ সাত নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার (২৮ডিসেম্বর) বিকেলে এই অভিযান পরিচালিত হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন-বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কেএম মাহবুবার রহমান হারেজ, উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব পিয়ার হোসেন পিয়ার, গাড়ীদহ ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান দবিবুর রহমান, শেরপুর পৌরসভার কাউন্সিলর বিএনপি নেতা জাহেদুর রহমান টুলু, ফেরদৌস জামান, হাফিজার রহমান ও আব্দুর রহিম। শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) বুলবুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে একাধিক নাশকতার মামলা রয়েছে। সেইসব মামলায় শুক্রবার রাতেই আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। এরআগে গত বৃহস্পতিবার ও গতকাল শুক্রবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে জামায়াত সমর্থিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানসহ আরও ১৬জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাঁরা হলেন- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহরের হামছায়াপুর এলাকার বাসিন্দা আলহাজ দবিবুর রহমান (৫৬), শেরপুর পৌরসভার কাউন্সিলর স্থানীয় স্যানালপাড়ার বাসিন্দা বিএনপি নেতা সৌমেন্দ্র নাথ ঠাকুর শ্যাম (৪৫), উপজেলার দরিখাগা গ্রামের বিএনপি কর্মী ওমর আলী (৫৫), সীমাবাড়ী ইউনিয়নের টাকাধুকুরিয়া গ্রামের মজনু সেখ (৩৬), মোয়াজ্জেম হোসেন (৫০), শাহবন্দেগী ইউনিয়নের সাধুবাড়ী গ্রামের আলমগীর হোসেন স্বপন (৪০), ঘোলাগাড়ী গ্রামের মো. সেলিম রেজা (২৯) কুসুম্বী ইউনিয়নের জামুর গ্রামের আব্দুল্লাহ (৩০), গোসাইবাড়ী বটতলা এলাকার তোফায়েল আহমদ (৩৬), লক্ষীকোলা গ্রামের মো. মোকছেদ আলী (৫৫), মাগুরগাড়ী গ্রামের আরিফ মাহমুদ (৩০), মির্জাপুর ইউনিয়নের ভাদরা গ্রামের রাকিবুল হাসান (২৮), সুঘাট ইউনিয়নের জয়লাজুয়ান গ্রামের মোতাহার হোসেন রকেট (৫০), ফুলজোর গ্রামের লুৎফর রহমান (৩৮), বিনোদপুর গ্রামের শহিদুল ইসলাম (৩৫) ও খানপুর ইউনিয়নের নলবাড়িয়া গ্রামের আবু বকর সিদ্দিক (৫৬)। শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) বুলবুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে নাশকতামূলক কর্মকা-ের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া কারো কারো বিরুদ্ধে একাধিক নাশকতার মামলাও রয়েছে। তাই তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন