বগুড়া সংবাদ ডটকম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন) : সামান্য বৃষ্টি হলেই গ্রামীণ সড়কে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। আর জলাবদ্ধতা থেকেই কাঁদাযুক্ত হয়ে পড়ে পুরো ৪ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক। কাঁদাযুক্ত সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল না করায় গ্রামবাসীকে পায়ে হেঁটেই গন্তব্যে পৌছাতে হয়। এমন চিত্র বগুড়ার ধুনট উপজেলার বেলকুচি-চান্দিয়ার গ্রামীন কাঁচা সড়কের। তাই গ্রামবাসী তাদের এই দীর্ঘদিনের দূভোর্গ থেকে মুক্তি পেতে সোমবার সকালে গ্রামীন কাঁদাযুক্ত ওই সড়কে ধানের চারা রোপন করে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছে। তারা দ্রুত ওই সড়ক পাকা করনের দাবি জানিয়ে সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানাগেছে, ধুনট সদর ইউনিয়নের বেলকুচি পাকা সড়ক থেকে চৌকিবাড়ী ইউনিয়নের চান্দিয়ার পাকা সড়ক পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক রয়েছে। ওই সড়ক দিয়ে বেলকুচি, নয়াচান্দিয়ার, বাটিকাবাড়ী, কোনাগাঁতি সহ কয়েকটি গ্রামের হাজারো লোকজন যাতায়াত করে। কিন্তু বৃষ্টি হলেই প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় ওই সড়কে। কাঁদাযুক্ত হয়ে পড়ে পুরো সড়ক। কিন্তু তারপরও ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিদিন ওই কাঁদাযুক্ত পথ পাড়ি দিয়েই বিদ্যালয়ে যেতে হয়। কৃষকদেরও কৃষি পন্য পরিবহনে ভোগান্তি পোহাতে হয়। এছাড়া অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে পৌছাতেও বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়।
নয়াচান্দিয়ার গ্রামের কৃষক আজিবর রহমান ও শিক্ষক জোয়ায়ের আল মাহমুদ সবুজ জানান, ওই সড়ক দিয়ে অল্প সময়ে উপজেলা সদর সহ বিভিন্ন এলাকায় পৌছানো যায়। আর একারনে কয়েকটি গ্রামের লোকজন ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে। কিন্তু সামান্য বৃষ্টি হলেই ওই সড়কে ভ্যান রিকসা সহ ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে এলাকাবাসীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। তাই সড়কটি পাকাকরনের দাবি জানিয়ে গ্রামবাসী ওই সড়কে ধানের চারা রোপন করে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছে। গ্রামবাসী দ্রুত ওই সড়কটি পাকাকরন করতে সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এবিষয়ে বগুড়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবর রহমান বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে ধুনট-শেরপুরে এপর্যন্ত ৩২০ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পাকাকরন করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে দুই উপজেলায় আরো ৬০ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পাকাকরণ করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে কোন সড়কই বাদ থাকবে না প্রতিটি গ্রামের প্রতিটি কাঁচা সড়কই পাকাকরন করা হবে। এছাড়া যে সড়কগুলো ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে সেই সকল সড়কের কাজ অতিদ্রুত শুরু হচ্ছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন