বগুড়া সংবাদ ডট কম (রায়হানুল ইসলাম, শেরপুর প্রতিনিধিঃ নির্বাচন কমিশনের প্রণীত প্রার্থীতা বৈধকরনের বিধিমালা অনুযায়ী ভোটারদের স্বাক্ষর নেওয়ার বিধান থাকায় ভোটারদের স্বাক্ষর না পেয়ে নিজেরাই স্বাক্ষর জাল করে বগুড়া-৫ শেরপুর-ধুনট আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করায় তাহমিনা জামান হিমিকা, উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা দবিবুর রহমান ও যুক্তফ্রন্ট প্রার্থী মাহবুব আলীর মনোনয়ন বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।
জানা গেছে, শেরপুর শহর মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী তাহমিনা জামান হিমিকা আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাবার জন্য দীর্ঘদিন যাবত এলাকায় আওয়ামীলীগ দলীয় কোন নেতাকর্মী না থাকলেও বিভিন্ন দল থেকে ছিটকে পরা সুবিধাভোগিদের নিয়ে জনসংযোগ করেছেন। তিনি নৌকা প্রতীক পাবার জন্য ঢাকায় দলীয় মনোনয়ন ফরমও উত্তোলন করেন। কিন্তু এ আসনে বর্তমান এমপি আলহাজ্ব হাবিবর রহমানকে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়। দলীয় মনোনয়ন না পেলেও তাহমিনা জামান হিমিকা গত ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তার মনোনয়ন দাখিল করেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রার্থী হতে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রার্র্থীর শর্তমানায় সংশ্লিষ্ট আসনের মোট ভোটারের শতকরা ১% ভোটারের স্বাক্ষর ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সংযুক্ত বিধান রাখা হয়। এতে তাহমিনা জামান হিমিকা এ আসনের ভোটারদের স্বাক্ষর নিজেরাই জাল করে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার অভিযোগ ওঠায় রিটার্নিং কর্মকর্তা গতকাল রোববার যাচাই বাছাই করে হিমিকার মনোনয়ন বাতিল করেন। এছাড়াও উপজেলা চেয়ারম্যান দবিবুর রহমান পদ থেকে পদত্যাগ না করায় ও মাহবুব আলীর কাগজপত্র ঠিক না থাকায় তাদের মনোনয়ন বাতিল করেন।
এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী ও সহকারি রির্টানিং অফিসার মো.লিয়াকত আলী সেখ বলেন, এ আসনে ৫ হাজার ভোটারের স্বাক্ষর দেয়ার বিধান থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা জামান হিমিকা জমা দিয়েছেন প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ভোটার স্বাক্ষরিত কাগজ। এক্ষেত্রে সন্দেহ হলে সরেজমিনে গিয়ে অধিকাংশ ভোটার স্বাক্ষর জাল প্রমানিত হয়েছে। তাই হিমিকাসহ উক্ত ৩ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন