বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়ার শাজাহানপুরের শাকপালা এলাকায় সরিফ সিএনজি ফিলিং স্টেশনে চাঁদার দাবিতে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে অফিস ভাঙচুর, মারপিট ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় শাজাহানপুর থানায় অজ্ঞাতনামাসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়া লতিফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,এজাহারভূক্ত আসামীদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, বগুড়া শহরের কাটনারপাড়ার মৃত মোসলেম উদ্দিনের পুত্র মোফাজ্জল হোসেন রঞ্জু ওরফে ধলা মিয়া (৫০) ও জেলখানা মোড়ের মৃত তবিবর রহমানের পুত্র ফেরদৌস আলম ফটু (৫২) সহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন যুবক গত গত ২২ নভেম্বর সন্ধা সাড়ে ৭ টার দিকে শাকপালাস্থ সরিফ সিএনজির ক্যাশরুমে প্রবেশ করে সিএনজির প্রোপাইটর দেলওয়ারা বেগম ও তার জামাই বগুড়া জেলা পরিষদের সদস্য আনোয়ার হোসেন রানাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করাসহ বিশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। ঘটনার রাতেই এ বিষয়ে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়। এরই ধারাবাহীকতায় গত ২৯ নভেম্বর রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে মোফাজ্জল হোসেন রঞ্জু ওরফে ধলা মিয়া (৫০), ফেরদৌস আলম ফটু (৫২),কানিজ ফাতেমা পুতুল (৪০), আমেনা বেগম (৪৪), বিলকিস খাতুন (৪২) ও শান্তনা বেগম (৩৮)সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৭/৮ জন মাইক্রোবাসযোগে অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সিএনজি ফিলিং স্টেশন অফিসে প্রবেশ করে অফিসের রক্ষিত ক্যাশ বাক্স হতে গ্যাস বিক্রির চার লক্ষ সত্তর হাজার আটশত দশ টাকা লুট করে অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুর করে প্রায় পঞ্চাশ হাজার টাকা ক্ষতি স্বাধন করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এছাড়া পুর্বে দাবিকৃত বিশ লক্ষ চাঁদার টাকা রেডি করে রাখাসহ সিএনজির প্রোপাইটর দেলওয়ারা বেগম ও তার জামাই বগুড়া জেলা পরিষদের সদস্য আনোয়ার হোসেন রানাকে খুন করে লাশ গুম করার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় সরিফ সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সহকারী ক্যাশিয়ার আব্দুল হাই বাদী হয়ে ঘটনার রাতেই শাজাহানপুর থানায় মামলা দায়ের করে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এদিকে সরিফ সিএনজি ফিলিং স্টেশনে চাঁদার দাবিতে হামলা,মারপিট,লুটপাট ও খুনের হুমকি দেওয়ায় বাংলাদেশ সিএনজি এসোসিয়েশন রাজশাহী বিভাগীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। একই সঙ্গে এ ঘটনার মূল হোতা মোফাজ্জল হোসেন রঞ্জু ওরফে ধলা মিয়া ও ফেরদৌস আলম ফটুকে দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন