বগুড়া সংবাদ ডট কম (আনোয়ার হোসেন, নামুজা প্রতিনিধি) : বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতাধিন নামুজা ও পিরব অফিসের প্রায় ৩০ হাজার গ্রাহক তাদের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধে চরম ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, বগুড়া সদর উপজেলার নামুজা পল্লী বিদ্যুৎ অভিযোগ কেন্দ্র ও শিবগঞ্জ উপজেলার পিরব পল্লী বিদ্যুৎ দুইটি অভিযোগ কেন্দ্রের আওতাধিন এলাকা সমূহ নামুজা, বুড়িগঞ্জ, মাঝিহট্ট, পিরব, বিহার, আটমূল ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার গ্রাহক তাদের বিদ্যুৎ বিল স্থানীয় নামুজাহাট সোনালী বাংক লিঃ ও জামুরহাট সোনালী ব্যাংক লিঃ এই দুইটি শাখার এসব বিল পরিশোধ করে আসছিল। গত ১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ইং তারিখ হইতে ওই দুইটি সোনালী ব্যাংকের শাখায় নোটিশ দেওয়া হয়েছে যে, পল্লী বিদ্যুৎ এর সঙ্গে ব্যাংকে বিল নেওয়ার চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। যার ফলে এসব ব্যাংকের শাখায় আর বিদ্যুৎ বিল নেওয়া হবে না। এর পরিপ্রেক্ষিতে বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্তৃপক্ষের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় প্রতি মাসের ১৯ ও ২৪ তারিখে নামুজা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে বিল নেওয়া হয়। এতে করে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধে গ্রাহকেরা প্রতিনিহত চরম ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে। এ ব্যাপারে ১২ নভেম্বর, ২০১৮ তারিখে নামুজা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ইনচার্জ মহাতাব উদ্দিনের নিকট জানতে চাওয়া হলে, তিনি জানান বিষয়টি তিনি কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করে অফিসিয়াল ভাবে জানিয়েছেন। মোকামতলা পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের ডেপুডি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) এর নিকট জানাতে চাওয়া হলে, তিনি জানান ব্যাংকের সঙ্গে নতুন করে চুক্তি করার কাজ চলছে। বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) এর নিকট জানতে চাওয়া হলে, তিনি জানান সরকারি টেলিটক এজেন্সীর মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল গ্রহন করার চেষ্টা চলছে। অতি সত্তর নামুজায় পল্লী বিদ্যুৎ অভিযোগ কেন্দ্রকে সাব জোনাল অফিস স্থাপন করে বিল পরিশোধ সহ পল্লী বিদ্যুতের যাবতীয় টাকা জমা দেওয়ার সু-ব্যাবস্থা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের শুভ দৃষ্টি কামনা করেন সচেতন মহল।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন