বগুড়া সংবাদ ডটকম (আনোয়ার হোসেন, নামুজা প্রতিনিধি) : বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কাঠগাড়া জোনাবিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক রিপনকে মারপিটের ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের। অভিযোগ ও স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, কাঠগাড়া জোনাবিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক (ইংরেজী), রিপন মিয়া উক্ত মাদ্রাসায় কর্মরত। সে বিএড প্রশিক্ষণের ১ম সেমিষ্টার পরিক্ষায় অংশ গ্রহন করার জন্য স্ব-বেতনে ছুটি মঞ্জুরের আবেদন করে কিন্তু সুপার সাহেব তার ছুটি মঞ্জুর না করে বিভিন্ন প্রকার তাল বাহনা এবং অপ্রয়োজনীয় একাডেমিক কাগজপত্র চেয়ে অযৌক্তিক ভাবে তাকে বার বার হয়রানির শিকার করে আসছে। সে তার অযৌক্তিক কথা-বার্তায় কোনো জবাব প্রদান না করায় সুপার কর্মস্থলে কর্মক্ষেত্রে বার বার বিঘ্ন ঘটায়। সুপার আব্দুল কুদ্দুস ও অফিস সহকারী শহিদুল ইসলামের নির্দেশে অত্র মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক (সামাজিক বিজ্ঞান) মোজাম্মেল হোসেন মুঠোফোনে শিক্ষক রিপনকে হুমকি-ধামকি দেয় এবং অযাচিতভাবে বাক-বিতান্ডার সৃষ্টি করে। উক্ত ঘটনার পরের দিন মঙ্গলবার মাদ্রাসায় যাবার পর সহকারী শিক্ষক মোজাম্মেল তার সহকর্মী মামুনুর রশিদ (সহকারী মৌলভী) শিক্ষককে সঙ্গে নিয়ে মাদ্রাসার অফিস রুমে মুঠোফোনে বলা কথাগুলোর জেরধরে তর্ক-বিতর্ক শুরু করে। এর এক পর্যায়ে শিক্ষক মামুনুর রশিদ ও মোজাম্মেল এক হয়ে মারমুখী আচারণ করে। এতেও খ্যান্ত না হয়ে শিক্ষক রিপনের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষক মোজাম্মেল হোসেন কিল ঘুষি ও এলোপাথারিভাবে মারপিট করতে থাকে এ সময় শিক্ষক মামুনুর রশিদ লাঠি দিয়ে রিপনকে বেধরক ভাবে মারপিট করে । উক্ত ঘটনার সু-বিচার চেয়ে শিক্ষক রিপন বাদী হয়ে অত্র মাদ্রাসার সুপার আব্দুল কুদ্দুস, শিক্ষক মামুনুর রশিদ, শিক্ষক মোজাম্মেল ও অফিস সহকারী শহিদুল ইসলামসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ১৬ অক্টোবর, ২০১৮ তারিখে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন