bograsangbad_Logoবগুড়া সংবাদ ডট কম (সারিয়াকান্দি প্রতিনিধি রাহেনূর ইসলাম স্বাধীন) : বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে একটানা দীর্ঘ ৪দিন পর যমুনায় বন্যার পানি উন্নতি হওয়ায় শুক্রবার দুপুর সাড়ে বারোটায় পূণরায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ায় জনমনে স্বস্তির পাশাপাশি জীবনযাত্রার মান উন্নিত হয়েছে এবং একই সাথে ব্যাবসা-বাণিজ্যে সচলাব্যস্থা ফিরে এসেছে। গত সোমবার রাতে যমুনার পানি পূণরায় বৃদ্ধি পাওয়ায় সারাদেশর আংশিক জেলার ন্যায় উপজেলায় দিত্বীয় বারের মতো ভয়াবহ বন্যা দেখা দেয়। এতে উপজেলার কুতুবপুর ও কর্ণিবাড়ি ইউনিয়নের ভিতর বিদ্যুৎ সরবরাহের ১২ থেকে ১৫টি বৈদ্যুতিক খুটি বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়ে। রাতারাতি পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পানিবন্দী পরিবারগুলো নৌকা ও কলা গাছের ভেলায় করে স্থানীয় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধে বা নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে থাকে। বৈদ্যুতিক খুঁটির নীচ দিয়ে ভেলা বা নৌকা চলাচল করার সময় বৈদ্যুতিক শোকে প্রাণনাশের ঝুঁকি দেখা দেওয়ায় উপরের নির্দেশনায় সারিয়াকান্দি সাবস্টেশন বিদ্যুৎ কেন্দ্র সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। ফলে উপজেলার কামালপুর কুতুবপুর, রৌহদহ, চন্দনবাইশা ও ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক গ্রাহক বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে এবং বিচ্ছিন্নকৃত এলাকায় কলকারখানা, রাইচ মিলসহ বৈদুতিক চালিত ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। এতে পড়ালেখার সমস্যা দেখা দেয়। এসব এলাকায় জনদুর্ভোগের পাশাপাশি অর্থনৈতি বির্পাযয় দেখা দেয়। ভুক্তভোগীদের দাবী যেহেতু, বন্যার পানি বৃদ্ধি পেলেই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয় সেজন্য বাঁধের উপর দিয়ে বিদ্যুৎবাহী তার পারাপার করে অথবা গাবতলী বা ধুনট এলাকা থেকে বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত করতে কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়েছেন। এ বিষয়ে সারিয়াকান্দি পল্লী বিদ্যুৎ সাবস্টেশনের সহকারি জেনারেল ম্যানেজারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, গাবতলী বা ধুনট থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপন করা সম্ভব নয়। তবে বর্তমান সংযেযাগ দেবার পর বন্যার সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি দেখা দিলে পূণরায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হবার সম্ভবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে কুতুবপুর উপ-অভিযোগ কেন্দ্র ইনচার্জ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন