বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়া প্রেসক্লাবের নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বগুড়া ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সদস্য এবং দৈনিক খোলা কাগজের প্রতিনিধি ও দৈনিক মুক্ত সকালের সহকারী সম্পাদক আব্দুর রহিমের বাবা লয়া মিয়ার জানাজা নামাজ শেষে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বাদ যোহর শহীদ চান্দু স্টেডিয়াম চত্বরে মরহুমের জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা নামাজে অংশ নেন বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন, বগুড়া জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ খান রনি, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলী আজগর তালুকদার হেনা, বগুড়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল আলম নয়ন, সাবেক সভাপতি ওয়াসিকুর রহমান বেচান, মীর সাজ্জাদ আলী সন্তোষ, আক্তারুজ্জামান, সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম বাবু ও নাজমুল হুদা নাসিম, কোষাধ্যক্ষ শফিউল আযম কমল, কার্যনির্বাহী সদস্য তোফাজ্জল হোসেন, সাজ্জাদ হোসেন পল্লব, সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়ার সভাপতি মীর্জা সেলিম রেজা, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জেএম রউফ, সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়ার সহ-সভাপতি আব্দুস সাত্তার, কোষাধ্যক্ষ আব্দুল ওয়াদুদ, কার্য নির্বাহী সদস্য এস এম আবু সাঈদ, বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামান মিয়া, বগুড়া পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর দেলোয়ার হোসেন পশারী হিরু, মোস্তাকিম রহমান, আরিফুর রহমান আরিফ ও মেজবাহুল হামিদ মেজবা, সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু তালেব বোল্লা ও আব্দুল মজিদ পশারী, বগুড়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রির পরিচালক আবুল কালাজ আজাদ, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মাহবুবর রহমান বকুল, যুগ্ম সম্পাদক শেখ তাহা উদ্দিন নাহিন, মাফতুন আহম্মেদ খান রুবেল, শাজাহানপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আবুল বাশার, শহর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মাহাবুব হাসান লেমন, বগুড়ার জলেশরীতলা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রেজাউল বারী ঈশা, নিরাপদ সড়ক চাই বগুড়া শাখার সভাপতি রোটারিয়ান মোস্তাফিজার রহমান, মরহুমের ছেলে নুরুল ইসলাম খোকা, নুর আলম, আব্দুর রহিমসহ মরহুমের পরিবারের আত্নীয় স্বজন, স্থানীয় গন্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। জানাজা শেষে নামাজগড় আঘ্জুমান-ই-কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।
উল্লেখ্য গত বুধবার দিনগত রাত ৮ টায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। তিনি বগুড়া শহরের খান্দার এলাকার বাসিন্দা।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন