বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়া শহরের চকসুত্রাপুর এলাকার জনৈক কালাম রবিবার বগুড়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ঘোষনা দিয়েছেন যে, তিনি এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যগন ইতোপুর্বে মাদক কারবারের সাথে জড়িত থাকলেও বর্তমানে তারা এসকল কর্মকান্ড ছেড়ে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমরা এক সময় বগুড়া শহরে মাদক ক্রয় বিক্রয়ের সাথে জড়িত ছিলাম। মাদক ব্যবসা সমাজের জন্য বিপদজনক ভাবে ক্ষতিকর। মাদকের ছোঁয়ায় অনেক পরিবার সংসার ভেঙ্গে গেছে। সে সকল পরিবার আজ ভয়াবহ পরিনতির দিকে ধাবিত হচ্ছে। অনেকের বুকের সন্তান ছেলে-মেয়ে মাদকের ছোবলে আজ পথে পথে ঘুরছে। একজন মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে আমাদের প্রশাসন সমাজে এলাকায় বিভিন্ন ভাবে লজ্জাজনক অবস্থায় পড়তে হয়। সমাজে আমাদের লজ্জাজনক অবস্থান এবং আমাদের ছেলে-মেয়ে বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন স্থানে হেনস্তার স্বীকার হতে হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে অনেক মাদক ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা ছেড়ে সুস্থ্য জীবনে ফিরে এসেছে। ঐ ঘটনাগুলো আমাদের উদ্ধুদ্ধ করেছে। সমাজের কথা ভেবে, দেশের কথা ভেবে সর্বপরি নিজেরা সুস্থ্য জীবনে যাপনের জন্য আমরা গত কয়েক বছর ধরে সকল প্রকার মাদক ক্রয়-বিক্রয় ছেড়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাবন করছি।
সমাজের কাছে দায়বদ্ধ হয়ে আমরা স্বেচ্ছায় যে ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছি, তার জের এখনো আমাদের পিছু ছাড়ছে না। অনেকে নানা ভাবে আমাদের হয়রানি করছে। এমন কি প্রশাসনের লোকজনও আমাদের চলাফেরা যাচাই না করেই আমাদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করছে। মাদক ব্যবসা ছেড়ে সুস্থ্য ও স্বাভাবিক জীবন যাপন করায় আমরা প্রশাসন সহ সমাজের সকলের নিকট সহযোগিতা চাই।মোঃ কালাম খান (৪৫) পিতা মৃত মাইন খান সাকিন- চকসূত্রাপুর , চামড়া গুদাম লেন, বগুড়া সদর, বগুড়া। ২, মোছাঃ আয়না বেগম (৩৫) পিতা হযরত আলী সাকিন- চকসূত্রাপুর , চামড়া গুদাম লেন, বগুড়া সদর, বগুড়া। ৩, মোছাঃ নিহার (৪০) পিতা মৃত মাইন খান সাকিন- চকসূত্রাপুর , চামড়া গুদাম লেন, বগুড়া সদর, বগুড়।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন