বগুড়া সংবাদ ডট কম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে বগুড়ার কাহালু উপজেলার নিম্নাঞ্চল ডুবে গেছে। আষাঢ়ের শেষ সপ্তাহ থেকে শ্রাবণের ১৫ দিনের মধ্যে আমন মৌসুমের ধান রোপনের কাজ শেষ করতে হয়। কিন্তু এবার বর্ষার শুরু থেকে বৃষ্টি না হওয়ায় ধান রোপন নিয়ে বিপাকে পড়েন কৃষকরা। ১০ দিন আগে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় খেতে চাষাবাদ করে আমন রোপনের ধুম পড়ে যায় গ্রামের মাঠে মাঠে। কিন্তু কয়েক দিনের অতি বৃষ্টিতে সদ্য রোপন করা ধান ক্ষেত পানিতে তলে গেছে। কৃষকদের আশঙ্কা শতাধিক হেক্টর ক্ষেতের ফসল নষ্ট হবে। কিন্তু উপজেলা কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, ১৫-২০ হেক্টর ক্ষেতের ফসল নষ্ট হবে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাহালু উপজেলার নাগর নদীর আশপাশের গ্রামগুলোর মধ্যে ঝিনাই, টিটিয়া, নওদাপাড়া, চাঁদপুর, মদনাই, মহিষবাতান, গুলিয়ালপাড়া, কচুয়া, কানোড়া এবং শিল্প এলাকার মুরইল, নারহট্ট, দরগাহাট এলাকায় নিম্নাঞ্চলের ক্ষেত পানিতে ডুবে গেছে। মদনাই গ্রামের কৃষক মফছের আলী জানান, তিনি এবার ১২ বিঘা জমিতে আমন ধান রোপন করেছেন। গোটা জমির ফসল পানিতে ডুবে গেছে। পানি কমে যাবার পর আবারও তাঁকে রোপন করতে হবে। এ ব্যাপারে কাহালু উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ আখেরুর রহমান এর সাথে কথা বলা হলে তিনি জানান, চলতি মৌসুমে কাহালু উপজেলায় ১৮ হাজার ৬’শ ৫০হেক্টর জমিতে আমন ধান রোপন করেছে কৃষকরা। তবে অতি বৃষ্টির কারণে নাগর নদীর আশপাশ ও শিল্প কারখানার আশপাশের জমির ফসল নষ্ট হবে। তবে ১৫-২০ হেক্টর জমির ক্ষেত নষ্ট হতে পারে। এতে উৎপাদনের কোনো ক্ষতি হবে না।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন