বগুড়া সংবাদ ডট কম (নামুজা প্রতিনিধি আনোয়ার হোসেন) : বগুড়া সদর উপজেলার নামুজায় প্লাষ্টিক বেল্ট দিয়ে তৈরি হচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে চাহিদা। অনুসন্ধানে জানা যায়, নামুজা ইউনিয়নের বামনপাড়া গ্রামের মৃত তোজাম্মেল প্রামানিকের পুত্র আকামুদ্দিন প্রামিনিক (৪৮), এ প্রতিবেদক-কে জানান, তিনি প্রায় এক যুগ পূর্বে নিজের চিন্তা-চেতনায় আবির্ভাব ঘটিয়ে তিনি সংগ্রহ করেন ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশের কার্টুনে বাঁধাই করা প্লাষ্টিক বেল্ট। যেমন ফ্রিজ, টিভি, সেলাই মেশিনসহ বিদেশ থেকে আসা বিভিন্ন সার্জিক্যাল যন্ত্রাংশের কার্টুন বাঁধাই করা প্লাষ্টিক বেল্ট। তিনি আরোও জানান, ওইসব প্লাষ্টিক বেল্ট প্রথমদিকে স্বল্পমূল্যে পাওয়া গেলেও বর্তমান তা ক্রয় করতে হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০ টাকায়। এসব প্লাষ্টিক বেল্ট দিয়ে তৈরি করছে যথাক্রমে: মাছ রাখার খলি, ডালি, টুকরি ভার, বাসা বাড়ির ময়লা ফেলার হুচো, কাঁচা তরি-তকারি রাখার ডালা, গরুর মুখে পড়ানো গোমাই, ঝুড়ি ব্যাগ, ছুটকেস, মাদুর ও করপাসহ নানা রকমের দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত আসবাবপত্র। এসব পণ্য ক্রয় করে থাকেন নিম্নবৃত্ত, মধ্যবৃত্ত থেকে শুরু করে সকল শ্রেণির মানুষ। এক বিঘা জমি চাষ আবাদ এর পাশাপাশি তিনি এ পেষা হতে প্রতি মাসে ৬/৭ হাজার টাকা বাড়তি আয় করে থাকেন। তিন সন্তানের জনক আকামুদ্দিন দুই মেয়ে-কে বিবাহ দিয়েছেন এবং একমাত্র ছোট ছেলেকেও হাফেজিয়া মাদ্রাসায় পড়া-লেখা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি জানান, নামুজা ইউপির মথুড়া সিঙ্গারজান বন্দরে মাসে ৫শ’ টাকায় একটি দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে চলছে তার এই ব্যবসা। তার এই অভাবনীয় কাজের প্রেরণা ও সহযোগীতা করছেন স্ত্রী মোর্শেদা বেগম। বাঁশের তৈরি সামগ্রীর সমপরিমান মূল্য হলেও এসব জিনিসপত্র অপচঁনশীল, টেকসই ও দীর্ঘস্থায়ী। তিনি আরোও মনে করেন কোন কর্মকে ছোট করে দেখতে নেই। কঠোর পরিশ্রম ও ধৈর্য সফলতা বয়ে আনে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন