বগুড়া সংবাদ ডট কম (মহাস্থান প্রতিনিধি এস আই সুমন) : বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের চাঁদমুহা উত্তর পাড়া গ্রামের আছিয়া আক্তার (১৬) তার সন্তানের পিতৃ পরিচয় আশায় আইন আদালত সহ সকলের দারে দারে ঘুরছে, গ্রাম্য মাতব্বর দের শাসনের যাতাকলে পিষ্ট হয়ে সমাজ চ্যুত হয়েছে।
বগুড়া সদর থানা মামলা সুত্রে প্রকাশ সদরের চাঁদমুহা উত্তর পাড়া গ্রামের রহিম বাদশার মেয়ে আছিয়া আক্তার(১৬০ এর সাথে সোনাতলা উপজেলার পূর্ব সুজাত পুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের পুত্র স্বপন মিয়া(২৭) বিবাহের পুলভনে গত ০২.০২.১৭ ইং তারিখ রাত অনুমান ১১ ঘটিকার সময় আত্মীয়তার সুযোগে আছিয়ার ঘড়ে প্রবেশ করিয়া তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষন করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আছিয়া গর্ভবতি হলে আছিয়ার পরিবার স্বপনকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। সে প্রস্তাব প্রত্যাখান করিয়া বাদি হয়ে গত ২৬.১১.১৭ ইং বগুড়া সদর থানায় ১১৮-১৩২৯ নং একটি মামলা দায়ের করে। মামলা দায়ের পর গ্রাম্য মাতব্বর একই এলাকার মৃত ইব্রাহীম এর পুত্র আব্দুস সাত্তার(৬০), লাল মনের পুত্র আলম (৪০) মৃত ছবেদ আলীর পুত্র হাফিজার রহমান (৪৫) সহ এলাকার আরোও অনেকে আছিয়া ও তার পরিবারকে সমাজ চ্যুত করে ।এমন কি আছিয়ার বৃদ্ধ পিতা রহিম বাদশাকে মসজিদে নামাজ না পড়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করে এবং কেউ যাতে তাদের সাথে কোন প্রকার কথা বার্তা ও সামজিক কোন লেনদেন না করে। মতব্বরেরা ধর্ষন কারীর বিচার বা পুলিশ প্রশাসনকে সহযোগীতা না করে উল্টো মেয়ের পরিবারকে সমাজ চ্যুত করে রাখে। এঘটনায় আছিয়ার পিতা গ্রাম্য মাতব্বর ও স্বপন সহ তাদের সহযোগীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য আইন আদালত সহ প্রশাসনের দারে দারে ঘুরছে। কবে পাবে আছিয়ার তার সন্তানের পিতৃ পরিচয়, কবে পাবে রহিম বাদশা সমাজের মাতব্বরের হাত থেকে সামাজিক মর্যাদা। এভাবে কি আইনকে বৃদ্ধাঙ্গলীদেকে সমাজের মাতব্বরেরা অবিচার করতে থাকবে? এব্যাপারে গোকুল ইউপি চেয়ারম্যান সওকাদুল ইসলাম সরকার সবুজের সাথে কথা বললে তিনি জানান ঘটনা সম্পূর্ণ সত্য। ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় মামলা হয়েছে। আসামীকে ধরার জন্য পুলিশের উপর চাপ অব্যহত রয়েছে। যারা এঘটনার সাথে জড়িত তাদেরকে আটক করে কঠোর শাস্তি প্রদানের জন্য প্রশাসনের প্রতি ভুক্তভোগী মহল আকুল আবেদন জানান।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন