বগুড়া সংবাদ ডটকম (শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ)  বগুড়ার শেরপুরের গোপালপুর এলাকায় করতোয়া নদী থেকে ১০জুলাই মঙ্গলবার বিকালে আব্দুল আলিম হোসাইন(৫০) এর মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো গোবিন্দ রবিদাস (৪০), মুক্তি রানী রবিদাস(৩৫), সুন্দরী দাস(৩৮)।

জানা যায়, উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নের রনবীরবালা গ্রামের মৃত আমির হোসেনের ছেলে আব্দুল আলিম হোসাইন গত সোমবার রাত অনুমান সাড়ে ৮টার দিকে ফ্রিজ কেনার জন্য একই গ্রামের নিশিপাড়ার নিতাই চন্দ্র রবিদাসের ছেলে গোবিন্দ রবিদাসের বাড়ীতে যায়। তারপর থেকেই আব্দুল আলিমকে আর খুঁজে পাওয়া যায়না।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে করতোয়া নদীর গোপালপুর এলাকায় লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে এবং নিহতের পরিচয় সনাক্ত করে। পরে খবর পেয়ে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে এবং হত্যার জড়িত সন্দেহে নিতাই চন্দ্র রবিদাসের ছেলে গোবিন্দ রবিদাস, গোবিন্দের স্ত্রী মুক্তি রানী রবিদাস ও শ্যামল চন্দ্রের স্ত্রী সুন্দরী রানী দাসকে আটক করে।

এ ব্যাপারে থানা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গোবিন্দ রবিদাস ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আব্দুল আলিম আমার বাড়ীতে ফ্রিজ কিনতে গিয়ে হঠাৎ ঘরের দেয়ালের সাথে ধাক্কা লেগে মাটিতে পড়ে যায়। আমি ও আমার স্ত্রী ঘর থেকে বের হয়ে দেখি সে মারা গেছে। ভয়ে কাউকে কিছু না বলেই মরদেহটি নদীতে ফেলে দিয়েছে।
এ প্রসঙ্গে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) বুলবুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছি এবং ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ৩জন গ্রেফতার করা হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন