বগুড়া সংবাদ ডট কম (মহাস্থান প্রতিনিধি এস আই সুমন) : বগুড়া সদরের শেখেরকোলা ইউপির গোকুল মৌজার প্রায় ১২ বিঘা জমির খনন করে মাছ চাষ, জমির পাশে টিএমএসএস এর জমি থাকায় মাছ চাষের নৌকা,বোড, ও মেশিন জোর পূর্বক তুলে নিয়ে যায় টিএমএসএস এর কর্মকর্তা কর্মচারী বৃন্দ।
জমির মালিক শেখেরকোলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মৃত রেজাউল করিম মৃধার পুত্র আঃ রশিদ জানান, দীর্ঘ দিন যাবৎ আমার জমি খনন করে মাছ চাষ করে আসিতেছি। জমির পশ্চিম ও দক্ষিন পার্শ্বে আরও ৩০ শতাংশ জমি ক্রয় করি। সেই জমির অংশীদারের কাছ থেকে একই দাগের ১০ শতাংশ জমি টিএমএসএস কর্তৃক পক্ষ ক্রয় করে। তাদের জমিটি নদীর পার্শ্বে হওয়ায় তা নদীর ঢেউ লেগে ভাঙ্গতে শুরু করে। ভাঙ্গা রোধ করতে না পারায় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বুধবার বেলা ১২ ঘটিকায় টিএমএসএস এর কর্মকর্তা কর্মচারী মিলে জোর করে আমার মাছ ধরার নৌকা ,বোড ভাংচুর করে এবং পানি সেচের মেশিন নিয়ে চলে যায়। এতে আমার প্রায় এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়। এ ব্যাপারে টিএমএসএস এর পরামর্শক নাজমুল হক এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, টিএমএসএস এর মালিকানাধীন গোকুল মৌজার হাল দাগ ৬৭৯৭/ ৬৭৯৮/ ৬৭৯৪/ ৬৭৯৫/ ৬৭৮৫ পরিমান ৭১ শতক জমির পাশে আঃ রশিদ কর্র্র্তৃক বালু উত্তোলনের ফলে জমিটি নদী গর্ভে ভেঙে যাওয়া শুরু করে। বালু উত্তোলন করতে আমরা নিষেধ করার পরও সে বালু উত্তোলন করতে থাকে। এ ব্যাপারে আমরা বগুড়া সদর থানা সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করে বুধবার বেলা ১২ টায় তার বালু উত্তলনের সরঞ্জামাদী অপসারণ করি। আঃ রশিদ জানান আমার কবলাকৃত জমিতে দীর্ঘ দিন যাবত মাছ চাষ করে আসিতেছি। টিএমএসএস কর্তৃকপক্ষ পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আমার মাছ চাষের প্রায় দেড় লক্ষ টাকার সরঞ্জামাদীর ক্ষতি সাধন করে। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে দোষি ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানান। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত আঃ রশিদ ও টিএমএসএস উভয় কর্তৃৃপক্ষ কর্তৃক কোর্টে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন