বগুড়া সংবাদ ডট কম (মহাস্থান প্রতিনিধিঃ বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে বাল্য ববিবাহ বন্ধ হলো গোকুল ইউনিয়নের চাঁদমুহা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী শারমিন আক্তারের।

সরেজমিনে গিয়ে গতকাল শনিবার রাত ৯টায় জানা যায়, বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের চাঁদমুহা উত্তর পাড়া গ্রামের শফিকুল ইসলামের মেয়ে চাঁদমুহা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী শারমিন আক্তার এর সাথে সদরের শাখারিয়ার নতুন পাড়া গ্রামের মীর কাসেম আলীর পুত্র আতিকুল ইসলামের বিয়ের দিন ধার্য করে শনিবার শারমিনের বাড়ীতে বিয়ের জন্য বর যাত্রী আসে।

এ সংবাদ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজিজুর রহমান জানতে পেয়ে মেয়ের বাড়ী আসার পূর্বেই বরের লোকজন পালিয়ে যায়। বিয়ের ঘটনার সত্যতা মেয়ের বাবা ও তার পরিবার স্বীকার করলে মেয়ে পক্ষকে ১০০০ এক হাজার টাকা জরিমানা করে এবং ১৮ বছরের পুর্বে মেয়েকে বিয়ে না দেওয়ার প্রতিশ্রুতি নিয়ে মুছলেখা নেওয়া হয় ও মেয়ের পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, আমার সময় কালে বগুড়া সদর উপজেলায় কোন বাল্য বিবাহ দিতে দিব না। এ কাজে যারা সহযোগীতা করবে তাদেরকেও আইনের আওতায় নিয়ে এসে শাস্তি প্রদান করা হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা অফিসের মেহেদী হাসান, ইউপি সদস্য আলী রেজা তোতন, জাকির হোসেন, রুমি বেগম, নুনগোলা ইউপি সদস্য বেলাল হোসেন, মহাস্থান প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইদুর রহমান সাজু, সাধারণ সম্পাদক এস আই সুমন, আকাশ, আওয়ামীলীগ নেতা শাহজাহান আলী সহ এলাকার গণ্য মান্য ব্যক্তি বর্গ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন