বগুড়া সংবাদ ডট কম (এইচ আলিম, বগুড়া) : বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্গত কাজী কোল্ড ষ্টোর কর্তৃপক্ষকে ট্যাক্স নোটিশ পাঠানোর কারণেই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলামের নামে মিথ্যা অভিযোগ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার দিন কাজী কোল্ড ষ্টোরের ম্যানেজার তাহেরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বিহার ইউনিয়ন পরিষদে হামলা করে আসবাবপত্র ভাংচুর, ড্রয়ার থেকে জন্ম নিবন্ধন ও ট্যাক্স আদায়ের ১ লাখ ২০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় বলে বৃহস্পতিবার বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেন পরিষদের সদস্য (মেম্বার) সাইফুল ইসলাম।
বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলামের পক্ষে সাইফুল ইসলাম লিখিত সংবাদ সম্মেলনে বলেন, চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম একজন সমাজসেবক। তার পিতা আলহাজ্ব হাফিজার রহমান বীর মুক্তিযোদ্ধা। তার সন্তান চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম তাঁরই চেতনায় বেড়ে উঠে সমাজসেবায় নিজেকে সামিল করেন। বিহার ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে পরিষদকে নতুন করে সাজানোর জন্য ট্যাক্স আদায়সহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৩১ জানুয়ারি পরিষদের ২০১৬/২০০১৭ অর্থ বছরের বাৎসিরক ট্যাক্স পরিষদ করার জন্য পরিষদের প্যাডে একটি নোটিশ প্রেরণ করা হয় কাজী কোল্ড ষ্টোর এর প্রোপ্রাইটার বরাবর। এই নোটিশ কাজী কোল্ড ষ্টোরের ম্যানেজার তাহেরুল ইসলাম রিসিভ করেন। কাজী কোল্ড ষ্টোর কর্তৃপক্ষ ট্যাক্স পরিশোধের জন্য সময় চেয়ে বসেন। সে সময়ের মধ্যেও পরিশোধ না করায় গ্রাম পুলিশ মোঃ খোরশেদের মাধ্যমে কাজী কোল্ড ষ্টোর কর্তৃপক্ষকে বিহার ইউনিয়ন পরিষদে হাজির হয়ে তার কারণ জানাতে বলা হয়। এরপর গত ২১ মে বিকাল সাড় ৪টায় তাহেরুল ইসলাম, বাইয়েজিদ, মাসুম, রেজাউল, মোঃ কাদের, হোসাইন, মোঃ সিদ্দিক, মোঃ দেলোয়ার কাজীসহ অন্যান্যরা একত্র হয়ে ইউনিয়ন পরিষদে হামলা করে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শাহজামাল ও গ্রাম পুলিশ খোরশেদকে বাটাম দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। এ ঘটনায় চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম বাদি হয়ে শিবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় উপরে উল্লেখিত তাহের বাহিনীদের আসামী করা হয়। এই আসামীদের অতি দ্রুত গ্রেফতার দাবী করে বলা হয়, আসামীরা গ্রেফতার না হলে চেয়ারম্যান মোঃ মহিদুল ইসলামকে যে কোন সময় হত্যা বা হামলার শিকার হতে পারে। এদিকে তাহেরুল ইসলাম উল্টা চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে শিবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে এবং ২৩ মে তাহেরুল ইসলামের স্ত্রী ববিতা বিবি নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে নিজের মনগড়া কথা বলে, যা সত্য ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা করছে। যা মিথ্যা, বানোয়াট এবং চেয়ারম্যান মহোদয়কে হেয়, ও সমাজে ছোট করার জন্য এই মামলা দায়ের ও সংবাদ সম্মেলন করেছে। চেয়ারম্যান মোঃ মহিদুল ইসলামের উপর হামলা, মামলা ও সংবাদ সম্মেলন করায় নিন্দা জানাচ্ছি এবং এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে হমালাকারি দের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানাচ্ছি। নয়তো হামলাকারিরা সক্রিয় হয়ে উঠলে গ্রামীণ জনপদের বিহার ইউনিয়নটির কোন উন্নয়ন হবে না। থেকে যাবে অবহেলিত হয়ে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন বগুড়ার শিবগঞ্জ বিহার ইউনিয়নের সদস্য আব্দুল আলিম, বেগম রোকেয়া, মোখলেছার রহমান, শান্তনা বিবি, ছায়েদ আলী, বজলার রহমান, মাহফুজা বেগমসহ বেশ কয়েকজন ইউনিয়নের বাসিন্দা।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন