বগুড়া সংবাদ ডট কম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন) : বগুড়ার ধুনটে ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপজেলা পরিষদের সড়কের আওয়ামীলীগ দলীয় কার্যালয়ের সামনে এঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনার পর আওয়ামীলীগ দলীয় কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীরা অবস্থান করছিল। এসময় উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি তানজিল হোসেন ও পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সুজন কুমার সাহা মোটরসাইকেলযোগে আওয়ামীলীগ দলীয় কার্যালয়ের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন। এসময় উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আবু সালেহ্ স্বপন ও পৌর ছাত্রলীগের আহবায়ক বিপুল হাসান সহ ৪/৫জন অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনে ছাত্রলীগ নেতা সুজন কুমারকে লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকেন। পরে সংবাদ পেয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মাইদুল ইসলাম রনির নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা ছাত্রলীগ নেতা সুজন কুমারকে উদ্ধার করতে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। এসময় ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাকারিয়া খন্দকারকে লাঞ্চিত করে এবং ছাত্রলীগ নেতা আবু সালেহ্ স্বপনের মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। প্রায় এক ঘন্টা ব্যাপি ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার সময় উপজেলা পরিষদ সড়কের সকল দোকানপাঠ বন্ধ করে ব্যবসায়ীরা। লোকজন দিকবেদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। পরে সংবাদ পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।
তবে এবিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আবু সালেহ্ স্বপন ও সাবেক সাধারন সম্পাদক মাইদুল ইসলাম রনির সাথে মোবাইলফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে ফোন বন্ধ থাকায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রলীগের এক নেতা জানান, ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এক পক্ষ নৌকার বিপক্ষে প্রচারনা চালায়। তাই এবিষয় নিয়েই দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে।
ধুনট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মুঞ্জুরুল হক বলেন, সংবাদ পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। এবিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন