বগুড়া সংবাদ ডটকম (সাগর খান, আদমদীঘি প্রতিনিধি ঃ) বগুড়ার আদমদীঘিতে গত ৯ এপ্রিল রাত পৌনে চার টার সময় দৃস্কৃতিকারীদের সাথে পুলিশের গোলাগুলির ঘটনায় আহত ডাকাত মাসুদ রানা শুক্রবার রাতে ঢাকার পুঙ্গু হাসাপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা যান।
উল্লেখ্য, আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের বশিপুর গ্রামের ডেলা রাইচ মিল থেকে গত ৮এপ্রিল রাতে ৩/৪ জন দৃস্কৃতিকারীরা ৩০০ বস্তা চাল সহ ট্রাক ডাকাতি করে পালানোর সময় থানা পুলিশ চাল বোঝায় ট্রাক উদ্ধার সহ মাসুদ রানা নামের এক ব্যাক্তিকে আটক করে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তার দেয়া তথ্য মোতাবেক আদমদীঘি-দুপচাঁচিয়া সার্কেল আলমগীর রহমানের নেত্বতে অফিসার ইনচার্জ আবু সায়িদ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান সহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে গত ৯ এপ্রিল রাত পৌনে চার টার সময় আদমদীঘির চাটখইর গ্রামগামী পাঁকা রাস্তার পার্শ্বে জনৈক সামাদ হুজুরের বাগানের নিকট পৌছা মাত্রই পুলিশের টের পাইয়া গ্রেফতারকৃত আসামীর সহযোগীরা আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্রসস্ত্র সহ পুলিশকে আক্রমন করিলে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে পুলিশ সদস্য আজিজুর রহমান ও হাসানুর রহমান জখম প্রাপ্ত হয়। এ সময় পুলিশ তাদের আটক করতে আগাইয়া গেলে পুলিশ কে লক্ষ করিয়া আসামীগন এলোপাতারী ভাবে গুলি করিতে থাকিলে পুলিশ ও তাহার সরকারী অস্ত্র জানমাল রক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুড়লে দৃস্কৃতিকারীরা ছত্রভঙ্গ হইয়া গুলি ছুড়িতে ছুড়িতে এদিক সেদিক পালানোর সময় দৃস্কৃতিকারীদের ছোড়া গুলিতে আটক আসামী মাসুদ রানার বাম হাটুতে লেগে রক্তাক্ত জখম হইলে অজ্ঞাত ৭/৮ জন দৃস্কৃতিকারীদের কাছে থাকা দেশী অস্ত্রসস্ত্র ফেলে পালিয়ে যায়। জখম প্রাপ্ত আহত পুলিশ আজিজুর রহমান ও হাসানুর কে বগুড়া পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করায় এবং আটক ডাকাত আহত মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করায় তার অবস্থা অবনতি হলে ঢাকা পুঙ্গু হাসপাতালে নিলে গত শুক্রবার রাতে চিকিৎসাধিন অবস্থায় সেখানে মারা যান। পুলিশকে জখম ও সরকারী কাজে বাঁধা প্রদানের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত বগুড়ার মানিকচক কর্ণপুর উত্তর পাড়ার আব্দুল গফুরের ছেলে মাসুদ রানা (৩০) সহ ৭/৮ জন অজ্ঞাত নামার বিরুদ্ধে এস আই সাম মোহাম্মদ বাদী হয়ে গত ৯ এপ্রিল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওসি তদন্ত কিরন রায় ডাকাত মাসুদ রানার মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন