বগুড়া সংবাদ ডটকম (সাগর খান, আদমদীঘি প্রতিনিধি ঃ) মঙ্গলবার বগুড়ার সান্তাহারে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া একটি ওয়াজ মাহফিলের প্রধান ও বিশেষ বক্তাকে নিয়ে আয়োজক কমিটি ও ধর্মপ্রান তৌহিদী জনতার মধ্যে গত কয়েক দিন ধরে চরম উত্তেজনা চলে আসছে। আয়োজক কমিটি তাদের পছন্দের দুই বক্তাকে দিয়ে ওয়াজ করতে আর তৌহিদী জনতা কমিটি প্রতিরোধ করতে একে অপরকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন। এনিয়ে দ্বন্দ, সংঘাত ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এবং সামাজিক বিশৃঙ্খলা ঘটার আশংকা করা হচ্ছে। এ অবস্থা নিরসনে তৌহিদী জনতার পক্ষে রবিবার আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে স্বারকলিপি দেওয়া হয়েছে। এতে স্বাক্ষর করেছেন সান্তাহার দারুল উলুম ক্বওমী মাদ্রাসার মুহতামিম মোঃ মাহবুবুল ইসলাম, শিক্ষক মোঃ শহিদুল ইসলাম, আব্দুস ছালাম ও সান্তাহার পৌরসভার ৬ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজিম উদ্দীন সহ ৬ বিশিষ্ট ইসলামী আলেম।
জানা গেছে, আহ্লে সুন্নাহ ওয়াল জামায়াত ও ইমাম ওলামা কমিটি আদমদীঘি উপজেলা শাখা, সান্তাহার এর উদ্যোগে মিলাদুন নবী(সঃ) ও সীরাতুন নবী(সঃ) এর উপর ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এই ওয়াজ মাহফিলে প্রধান ও দ্বিতীয় বক্তা করা হয়েছে যথাক্রমে মাওলানা মুফ্তি ড. মোঃ আশরাফ আলীমুল্লাহ সিদ্দীকি ও মুফ্তি আল্লামা মোঃ শাহ্ আলম(দাঃ বাঃ)কে। তৌহিদী জনতার পক্ষে দেয়া স্বারকলিপিতে বলা হয়েছে বলা হয়েছে ওই দুই বক্তা ও তাদের সমমনা বক্তারা সাধারণ মুসলমানদের ধর্মানুভুতিতে আঘাত হেনে সংঘাতপুর্ণ ও উস্কানিমুলক এবং ইসলাম বিরোধী বক্তব্য দিয়ে থাকেন এবং তাবলীগ জামায়াত, ক্বওমী মাদ্রাসা ও চরমোনাই অনুসারীদের বিরুদ্ধে বিরুপ মন্তব্য করে থাকেন। ফলে তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে অবাঞ্ছিত ঘোষিত হয়েছে। সে কারনে আয়োজিত ওয়াজ মাহফিল সহ আদমদীঘি উপজেলায় ওই বক্তাদের উপস্থিতির সকল জলসা বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ করা হয়েছে। সোমবারের মধ্যে তাদের ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহন করা না হলে ধর্মপ্রান তৌহিদী মুসলমান জনতা নিয়ে তাদের প্রতিহত করার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন