বগুড়া সংবাদ ডট কম (ইমরান হোসেন ইমন, ধুনট থেকে) : বগুড়ার ধুনটে আসমা খাতুন (২৬) নামের এক গৃহবধুকে নির্যাতনের পর মাথা ন্যাড়া করে দিয়েছে বকুল হোসেন (৩৫) নামের এক পাষন্ড স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের মাধবডাঙ্গা গ্রামে। সোমবার বিকালে স্থানীয় এলাকাবাসী ও সাংবাদিকদের সহযোগিতায় স্বামীর বাড়ী থেকে ওই নির্যাতিত গৃহবধুকে উদ্ধার করে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে ভর্তি করেছে তার স্বজনেরা। এঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
জানাগেছে, ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের মাধবডাঙ্গা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে বকুল হোসেনের সাথে ধুনট সদরপাড়া এলাকার ইসমাইল হোসেনের মেয়ে আসমা খাতুনের প্রায় ৮ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে লিখন আকন্দ ও লিমন আকন্দ নামের দুই ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু গত এক বছর যাবত পারিবারিক বিষয় নিয়ে মাঝেমধ্যেই আসমা খাতুনকে নির্যাতন করে আসছে স্বামী বকুল হোসেন। এবিষয় নিয়ে একাধিকবার শালিশ বৈঠক হলেও স্বামী বকুল হোসেন আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে। গত ৯ এপ্রিল বকুল হোসেন তুচ্ছু বিষয় নিয়ে গৃহবধু আসমা খাতুনকে আবারও বেদম মারপিটে আহত করে। একপর্যায়ে স্বামী বকুল হোসেন তার স্ত্রীর মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে দেয়। এরপর গত সাতদিন যাবত ওই গৃহবধুকে ঘরে আটকে রেখে পাশবিক নির্যাতন চালায় পাষন্ড স্বামী বকুল হোসেন। এদিকে মেয়ের নির্যাতনের খবর শুনে তার পিতা ইসমাইল হোসেন দেখা করতে গেলেও তাকে দেখা করতে দেয়নি বকুল হোসেন। সোমবার বিকালে স্থানীয় এলাকাবাসী ও সাংবাদিকদের সহযোগিতায় স্বামীর বাড়ী থেকে নির্যাতিত গৃহবধু আসমা খাতুনকে উদ্ধার করেছে তার পিতা।
স্বামীর নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে গৃহবধু আসমা খাতুন জানান, কারনে-অকারনে দীর্ঘদিন যাবত স্বামী বকুল হোসেন তাকে নির্যাতন করে আসছে। গত এক সপ্তাহ আগে নির্যাতনের পর জোড়পূর্বক তার মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে দিয়েছে। বাড়ীতে কাউকে খবরও পাঠাতে দেয়নি। এমনকি তার পরিবারের সাথেও দেখা করতে দেয়নি। মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার পর ঘরে আটকে রেখে সাতদিন যাবত মারধর সহ বিভিন্নভাবে সে নির্যাতন করেছে। স্বামীর নির্যাতনের চিহ্ন পুরো শরীরেই রয়েছে জানিয়ে তিনি একপর্যায়ে কেঁদে ফেলেন।
গৃহবধু আসমা খাতুনের পিতা ইসমাইল হোসেন বলেন, স্থানীয় এলাকাবাসী ও সাংবাদিকদের সহযোগিতায় আমার মেয়েকে উদ্ধার করে ধুনট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এবিষয়ে থানায় এজাহার দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
তবে ওই গৃহবধুর স্বামী বকুল হোসেন নির্যাতনের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, স্ত্রী আসমা খাতুনের মাথায় খুসকি হওয়ায় তার চুল কেটে ন্যাড়া করে দেওয়া হয়েছে। তাকে ঘরে আটকে রেখে কোন নির্যাতন করা হয়নি।
ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মোহাম্মদ এরফান বলেন, এবিষয়ে এখনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন