বগুড়া সংবাদ ডট কম (শিবগঞ্জ প্রতিনিধি রশিদুর রহমান রানা) : বৃহস্পতিবার বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের সোনাদেউল কাজীপাড়া গ্রামের মিনা পারভিনের ছেলে জাহিদ হাসান(২২) সকাল ৬ঘটিকার সময় সকালের হাটার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। আনুমানিক ৬.৩০ঘটিকার সময় বাড়ি ফিরে আসার সময় একই গ্রামের আনছার আলীর বাড়ির সামনে গেলে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ওৎ পেতে থাকা আনছার আলীর ছেলে সোহাগ মিয়া((২৫)সহ ৩-৪জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রেসস্ত্রে সর্জ্জিত হয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে জাহিদ হাসানকে এলোপাতাড়িভাবে শরীরে বিভিন্ন জায়গায় আঘাত করে। এমতাবস্থায় জাহিদ হাসান মাটিতে পড়ে গিয়ে চিৎকার করতে থাকলে চিৎকার শুনে আশাপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সোহাগ ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। এলাকাবাসি এসে জাহিদ হাসানকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে সিএনজিযোগে তাকে মূমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে শিবগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এব্যাপারে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তার দেলোয়ার হোসেন বলেন, জাহিদ হাসানের নিচ পেটে ধারালো চাকুদ্বারা এবং মাথায় ও ডানহাতে লাঠিদ্বারা জখম করা হয়েছে। তার অবস্থা আশংঙ্খাজনক। জানতে চাইলে জাহিদ হাসনের মা বলেন, সোহাগ মিয়া মোছলেমা বেগম ও শিমুলগংরা আমার ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে এ হামলা চালিয়েছে। আমি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। আমি আমার ছেলের হামলার বিচার চাই। এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহামুদ খান বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর ঘটনার সাথে জড়িত ২জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন