বগুড়া সংবাদ ডট কম(মহাস্থান প্রতিনিধি): বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের বাঘোপাড়ায় এক গৃহবধূকে নির্যাতন করে মূমূর্য অবস্থায় ফেলে রেখে যাওয়ার সময় গৃহবধূর প্রতিবেশিরা দুই জনকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।
এলাকাবাসী ও আহত গৃহবধূ বাঘোপাড়া উত্তর পাড়া গ্রামের মহনের কন্যা সালমা (২০) এর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত ৭/৮ মাস পূর্বে জয়পুর হাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার সরাইল গ্রামের আবজাল হোসেনের পুত্র আবু হানিফের সাথে তার বিবাহ হয়। গর্ভে ২/ ৩ মাসের সন্তান রয়েছে। আবু হানিফ মাঝে মধ্যে যৌতুকের দাবীতে তার স্ত্রী সালমাকে অমানুষিক নির্যাতন করে আসছিল। গত ১১ এপ্রিল তাকে নির্যাতন করে মাইক্রোবাস ভাড়া করে আবু হানিফের ভগ্নীপতি নুর আলম সহ ৪/৫ জন গৃহবধূ সালমাকে বাঘোপাড়া উত্তর পাড়া বগুড়া রংপুর মহাসড়কের পার্শে সন্ধ্যায় ফেলে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোক জন মাইক্রোবাসটি আটক করার চেষ্টা করলে সবাই কৌশলে পালিয়ে গেলেও নুর আলম তার ভাই আলমগীর হোসেন পালাতে পারেনি। এ সংবাদ গৃহ বধূর পরিবার থানা পুলিশকে অবহিত করলে থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ, এস আই ,মহসিন আলী, জাহিদ, ওয়াদুদ ঘটনাস্থলে পৌছে আটক কৃর্ত ২ জনকে থানায় নিয়ে যায়। সালমাকে প্রথমে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে টিএমএসএস রফাতুল্লাহ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে মৃত্যুর সঙ্গের পাঞ্জা লড়ছে। দোষি ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানান। ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদেরকে পুলিশের কাছে হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন, ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম সাজু, সাবেক ইউপি সদস্য তোফাজ্জল হোসেন লেদু, মাওলানা আব্দুর রউফ সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন