বগুড়া সংবাদ ডটকম (সাগর খান আদমদীঘি) প্রতিনিধি ঃ  বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা ও নওগাঁ জেলার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ইরামতি খাল ও রক্তদহ বিলে বরেন্দ্র বহুমূখি উন্নয়ন প্রকল্প বৃষ্টির পানি আটকে রাখার জন্য অপরিকল্পিত ভাবে ২টি বাঁধ নির্মাণ করায় চলতি বছরেও শত শত হেক্টর ইরি-বোরো ফসলের ক্ষেত হুমকির মুখে পড়েছে। এক পশলা বৃষ্টি হলেই পানি নিষ্কাশনের এই খালে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে শত শত হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে যায়। বিগত প্রায় তিন বছর যাবৎ এই বাঁধের সচিত্র রিপোর্ট বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ হলে গত বছর এই সময়ে স্থানীয় কৃষকরা বাধ্য হয়ে এ দুটি বাঁধের কিছু অংশ ভেঙ্গে ফেলেছে। কিন্তু তাতেও কোন লাভ হচ্ছে না এ অঞ্চলের কৃষকদের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার ঐতিহাসিক রক্তদহ বিলে গেল কয়েক দিনের বৃষ্টির উজান থেকে নেমে আসায় রক্তদহ বিলের শত শত হেক্টর জমির বোরো ধান হুমকির মুখে পড়েছে। এর কারণ হিসাবে জানা যায়, রক্তদহ বিলের জমে থাকা বৃষ্টির পানি আত্রাই নদীতে প্রবাহিত হয়ে থাকে। বৃষ্টির পানি ধরে রেখে আপদ কালিন সময় ধান ও রবি শষ্যে সেচ দেয়ার জন্য এই রক্তদহ বিলের দুই পার্শ্বে ২০১৪ সালে বরেন্দ্র প্রকল্পের আওতায় তিলাবধু ও আকনা বাঁশবাড়িয়া নামক স্থানে এ দুটি বাঁধ নির্মান করা হয়। গত কয়েক দিনে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলাসহ আশ পাশের এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড় ও বৃষ্টির সাথে পাল¬া দিয়ে শীল পড়ায় করজবাড়ি দক্ষিন গনিপুর, কদমা, সান্দিড়া, দমদমা, বোদলা, পালসা, তেবাড়িয়া, বিশিয়াসহ কয়েক গ্রামের প্রায় ৫ শতাধিক হেক্টর জমিতে বৃষ্টির পানি উঠে প্ল¬াবিত হয়ে ইরি বোরা ধান হুমকির মুখের পড়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, রক্তদহ বিলের দুই পার্শ্বে অপরিকল্পিত ভাবে এ দুটি বাঁধ নির্মান করার কারণে বৃষ্টির পানি নিস্কাশন বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে রক্তদহ বিলের আশে পাশের জমির ইরি বোরো ধান পানির নিচে ডুবে নষ্ঠ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। স্থানীয় কৃষক মোহাম্মাদ আলী, খোকা, মোকছেদ, মনছুর আলী আব্দুর রাজ্জাকসহ অনেকেই জানায়, এ দুটি বাঁধের কারণেই আমাদের এই সমস্যা। বাঁধ দেওয়ার কারণেই জলাব্ধতার সৃষ্টি হয়ে এই অঞ্চলের শত শত হেক্টর জমির ধান প¬াবিত হয়ে ধান বিনষ্ঠ হতে চলেছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম জানায়, ওই দুইটি বাঁধের কারণে এলাকার শত শত কৃষকদের এখন মরণ ফাঁদে পরিনত হয়েছে।
এ ব্যাপারে আদমদীঘি উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম রাজু জানান, রক্তদহ বিলে জমে থাকা পানি নিস্কাশনে বাধাগ্রস্তের কারণে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে জমির ধান পানিতে তলিয়ে যেতে শুরু করেছে। অচিরেই যদি এ সমস্যার সমাধান করা না হয় তাহলে আর একটু বৃষ্টি হলেই চরম বিপাকে পড়বে এ অঞ্চলের কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ কামরুজ্জামান জানান, রক্তদহ বিলে এ দু’টি বরেন্দ্র প্রকল্পের বাঁধের কারণে উজান থেকে নেমে আসা পানিতে উপজেলার আদমদীঘি সদর ইউনিয়ন ও সান্তাহার ইউনিয়নের নিম্মঞ্চলের শত শত হেক্টর জমির বোরো আবাদ হুমকির মধ্যে পড়েছে।

 

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন