বগুড়া সংবাদ ডটকম (সাগর খানআদমদীঘি প্রতিনিধি ঃ) বগুড়ার সান্তাহার জংশন ষ্টেশনে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের আসনের বরাদ্দ কম থাকা, টিকিট কালোবাজারীদের অত্যাচার, টিকিট বিক্রেতা বিশেষ করে মহিলা টিকিট বিক্রেতারা ট্রেন যাত্রীদের সাথে অসৌজন্যমুলক আচরনের কারনে সাধারন যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। চাহিদার তুলনায় আসন কম বরাদ্দ থাকায় প্রতিদিন টিকিট না পেয়ে অনেক যাত্রী ফিরে যেতে বাধ্য হন।
সান্তাহার ষ্টেশন কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, দিনে এবং রাতে সান্তাহার জংশন ষ্টেশন দিয়ে পাঁচটি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। এগুলো হচ্ছে, দিনাজপুর থেকে আসা দ্রুতযান আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ও একতা আন্তঃনগর এক্সপ্রেস,নীলফামারী থেকে আসা নীলসাগর আন্তঃনগর এক্সপ্রেস,লালমনিহাট থেকে আসা লালমনি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস এবং রংপুর থেকে আসা রংপুর আন্তঃনগর এক্সপ্রেস।
সান্তাহার ষ্টেশন মাস্টার রেজাউল করিম ডালিম বলেন, প্রতিদিন সান্তাহার জংশন ষ্টেশন থেকে এক থেকে দেড় হাজার যাত্রী বিভিন্ন ট্রেনে যাতায়াত করে থাকে। এর মধ্যে ঢাকাগামী যাত্রীর সংখ্যা থাকে পাঁচ থেকে ছয়শ। ঢাকাগামী ট্রেন গুলোতে চাহিদার চেয়ে অনেক কম আসন বরাদ্দ থাকায় টিকিট বিক্রি করতে হিমসিম খেতে হয়। তিনি বলেন, সান্তাহার জংশন ষ্টেশন থেকে নওগাঁ জেলা সদর নিকটে হওয়ায় সেখান থেকে বিপুল সংখ্যক যাত্রী ট্রেনে যাতায়াত করে থাকেন। এ ছাড়া নওগাঁয় বিজিবি’র দুটি ব্যাটালিয়ন এবং বগুড়া সেনানিবাস থেকে প্রচুর পরিমান সদস্য ট্রেন পথে চলাচল করেন। প্রয়োজন থাকা সর্ত্তের তাঁদের টিকিট দেওয়া সম্ভব হয় না। ঢাকাগামী ট্রেনগুলোতে বেশী আসন বরাদ্দ চেয়ে একাধিক বার উর্ধতন কর্তৃপক্ষের বরাবরে চিঠি দিয়েও কোন লাভ হয়নি।

 

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন