বগুড়া সংবাদ ডট কম : শিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যমে নিজ মেধাকে কাজে লাগিয়ে মানুষের কল্যাণ করাই যার আরাধ্য তিনিই ড. এম. গোলাম ছারোযার। পি এইচ ডি best thesis award ২০১৭ পাওয়ার পর আবার তিনি Larvicidal impact of some local medicinal plant extracts against aedes mosquitoes. এর উপর সফল গবেষণা চালিয়ে অর্জন করেছেন স্বাধীনতা দিবস সম্মাননা ২০১৮। গত ২৪ শে মার্চ রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ সেগুন চাইনিজ রেস্তরায় এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে তাঁকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের মাননীয় বিচারপতি জনাব মোঃ নিজামুল হক নাসিম এই সম্মাননা প্রদান করেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মাননীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরজাহান বেগম মুক্তা এম পি।
মশার লার্ভা খুব সংবেদনশীল হয়। তাই তাকে মেরে ফেলাও খুব সহজ। তবে সিনথেটিক লারভিসাইড এর ব্যাবহার যেমন পরিবেশ নষ্ট করে তেমনি লার্ভাকে রেসিস্ট করে তোলে। সেই দিক লক্ষ্য করে এই গবেষক জোর দিয়াছেন পরিবেশ বান্ধব ও কার্যকরী প্লান্ট এক্সট্রাক্ট এর দিকে। তিনি স্থানীয় চারটি ঘাস জাতীয় উদ্ভিদকে বেছে নিয়েছন। এগুলো হল ধুনিয়া চটি Blepharis maderaspatensis, Elaeagnus indica, Maesa indica and Phyllanthus wightianus।

উপরের চারটি এক্সট্রাক্টটিই খুব কার্যকর তবে এদের মধ্যে সবচাইতে বেশী কার্যকর হল acetone extracts of E. indica যা ১০০% কার্যকর। তার পর রয়েছে যথাক্রমে Blepharis maderaspatensis (90%), M. indica chloroform extract (85%) and P. wightianus exhibits considerable (45-82%).

আমাদের দেশে যত্র তত্র ছরিয়ে থাকা এই গুরুত্বপূর্ণ ঘাস জাতীয় উদ্ভিদ গুলো থেকে প্রাপ্ত নির্যাস হতে পারে মশা নিধনের মুল হাতিয়ার। বর্তমানে সিটি কর্পোরেশন যে ধরনের ফগার স্প্রে করে মশা নিধনের নামে পরিবেশের বারোটা বাজাচ্ছে তাতে না হচ্ছে মশা নিধন উল্টো অ্যাজমাটিক সমস্যা ও শ্বাস কষ্টের সমস্যা হচ্ছে প্রকট হতে প্রকটতর। ডক্টর ছারোয়ারের এই গবেষণা খুলে দিতে পারে নগর বাসীর সুখময় জীবন যাপনের নব দ্বার।
ড. ছারোয়ার ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭৭ সালে বগুড়া জেলার নন্দিগ্রাম উপজেলার আচলতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মোঃ আশরাফ আলী ফকির ও মাতা মিসেস আছিয়া আশরাফ। তিনি তাঁর নয় ভাই ও দুই বোনের মধ্যে ৭তম। তিনি ছোট বেলা থেকেই অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র ছিলেন। তিনি ১৯৯০ সালে কুমিড়া পণ্ডিত পুকুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে পুরো বগুড়া জেলায় ২য় স্থান অর্জন করেন। একই বিদ্যালয় থেকে ১৯৯৩ সালে স্টার মার্ক নিয়ে এস এস সি এবং ১৯৯৫ সালে সরকারি আযিযুল হক কলেজ বগুড়া হতে প্রথম বিভাগে এইচ এস সি পাশ করে ১৯৯৫-৯৬ সেশনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহ এ কৃষি অনুষদে ভর্তি হন এবং ১৯৯৯ সালে (২০০২ সালে অনুষ্ঠিত) বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহ হতে প্রথম শ্রেণীতে বি.এস.সি.এজি (সম্মান), একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে ২০০৪ সালে কীটতত্ত্ব বিষয়ে এম.এস (প্রথম শ্রেণীতে ২য় স্থানসহ) এবং ২০১৬ সালে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা হতে পি এইচ ডি ডিগ্রী অর্জন করেন। শিক্ষাজীবনে তিনি সেরা বিতার্র্কিক হিসেবে অনেক পুরঙ্কার ও সম্মান অর্জন করেন। তিনি বর্তমানে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। আন্তর্জাতিক ও জাতীয় জার্নালে তার বেশ কয়েকটি গবেষনা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ব্যক্তিগত জীবনে ড. ছারোয়ার বিবাহিত ও এক সন্তানের জনক।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন